শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় পিলখানায় নিহত সেনাসদস্যদের স্মরণ

বাংলাদেশের ইতিহাসে জঘন্যতম পিলখানা হত্যাকাণ্ড ২০০৯ সালের এইদিনে সংঘটিত হয়। ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি পিলখানায় বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) সদরদপ্তরে নৃশংস হত্যাকাণ্ডে প্রাণ হারান ৫৮ জন সেনাসদস্য। হত্যাকাণ্ডের ১১তম বার্ষিকীতে আজ সকাল থেকেই বনানী সামরিক কবরস্থানে জড়ো হয়েছেন নিহত সেনা সদস্যের পরিবার। শোক, শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় তারা স্মরণ করেন না-ফেরার দেশে চলে যাওয়া স্বজনদের।

মঙ্গলবার সকালে বনানী সামরিক কবরস্থানে নিহত সামরিক সদস্যদের স্মরণ করে তাদের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। এর আগে, রাষ্ট্রপতির পক্ষে তাঁর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম শামিম উজ্জামান এবং প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল নকিব আহমেদ চৌধুরী নিহতদের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

 

এছাড়াও সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ, নৌবাহিনী ভারপ্রাপ্ত প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ শাহিন ইকবাল, বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত এবং বিজিবির মহাপরিচালক মোহাম্মদ সাফিনুল ইসলাম পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর শহীদদের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য এক মিনিট নীরবতা পালন শেষে তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।
পিলখানা হত্যা দিবস স্মরণে দুই দিনব্যাপী বিশেষ কর্মসূচি পালন করবে বিজিবি।