বিপথগামীদের সুপথে আনতে সংস্কৃতিচর্চায় গুরুত্বারোপ

বিপথগামী শিশু, কিশোর, যুবকদের সুপথে আনতে খেলাধুলা ও সংস্কৃতিচর্চার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সারাদেশে মাসব্যাপী নাট্যোৎসব উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।

এসময় শেখ হাসিনা বলেন, আমি রাজনীতি করি, বক্তৃতা দেই। বক্তৃতা মানুষের কাছে পৌঁছে এটা ঠিক। কিন্তু একটি গানের মধ্যে দিয়ে বা কবিতার মধ্যে দিয়ে বা একটি নাটকের মধ্যে দিয়ে অনেক না বলা কথা বলে দেওয়া যায় এবং মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া যায়। মানুষের অনেক দাবি-দাওয়া তুলে ধরা যায় এই নাটকের মধ্যে দিয়ে, গান ও কবিতার মধ্য দিয়ে।

খেলাধুলা ও সংস্কৃতিচর্চার ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান যুগে অনেক সময় দেখা যায় মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ একটি পরিবার, একটি সমাজকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যায়।

নাটকের ওপর সেন্সর প্রথা তুলে দেওয়ার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৭৫ এর পর যারা ক্ষমতায় এসেছিল তারা কিন্তু এই নাটকের উপর অনেক ধরনের কালা-কানুন জারি করেছিল। সেই কালাকানুনগুলো ৯৬ সালে সরকারে এসে কিন্তু আমরা তুলে নেই। সবাই যেন স্বাধীনভাবে নাটক করতে পারেন সেই ব্যবস্থা করে দিয়েছিলাম। নাটকের ওপর যে সেন্সর করা হতো সেই সেন্সর প্রথাটা সম্পূর্ণ তুলে দিয়েছিলাম। নাটক তার স্বাধীন সত্তা নিয়ে চলবে সেজন্যই আমরা এটা তুলে দেই।

ঢাকা, সিলেট, রংপুর, রাজশাহী, চট্টগ্রামে ভিডিও কনফারেন্সে মতবিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানের শুরুতে ভিডিও কনফারেন্সে বিভিন্ন নাট্যগ্রুপের পরিবেশিত কয়েকটি নাটক উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

গণভবন প্রান্তে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ।

সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।