বাস্তব জীবনের ‘ফুংসুখ ওয়াংড়ু’

‘থ্রি ইডিয়টস’এর ফুংসুখ ওয়াংড়ুর কথা মনে আছে? হ্যাঁ, ‘থ্রি ইডিয়টস’ ছবির ‘র‌্যাঞ্চোরদাস শ্যামলদাস চ্যাঞ্চোড়’। বলিউডের আমির খান যে চরিত্রটিকে করে তুলেছিলেন দারুণ জনপ্রিয়।

চরিত্রটি কিন্তু কাহিনিকারের মাথায় এমনি এমনি আসেনি । ফুংসুখ ওয়াংড়ু চরিত্রটি লেখা হয়েছিল সোনম ওয়াংচুক নামের এক শিক্ষা সংস্কারকের জীবন থেকে। ‘থ্রি ইডিয়টস’ সিনেমাটি মূলত সোনমের ওয়াংচুকের জীবন থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে বানানো ।

সোনম ওয়াংচুকের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত শিক্ষাব্যবস্থার আন্দোলনের নাম ‘স্টুডেন্টস এডুকেশন অ্যান্ড কালচারাল মুভমেন্ট অব লাদাখ’ (এসইসিএমওএল)। সোনমের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটিকে তাই অনেকেই বলেন ‘ইউনিভার্সিটি অব ফেইলরস’। তিন-চারবারের ‘ফেলটুস’ সেই ছাত্রদের অনেকেই আজ বিশ্বসেরা সাংবাদিক, নির্মাতা ও স্বনামধন্য উদ্যোক্তা।

স্কুলের বাইরে আবহাওয়া যখন মাইনাস ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, স্কুলের ভেতরের তাপমাত্রা তখন প্লাস ১৫ ডিগ্রি। বন্যা হলে এই স্কুলের কোনো অসুবিধা হয় না।দিব্যি সেটা পানিতে ভেসে ওঠে। গ্রীষ্মে লাদাখের মতো বিরান অঞ্চল হয়ে ওঠে ধু-ধু মরুভূমি, পানির দেখা পাওয়াই যায় না। কিন্তু এই প্রকৌশলী পানিকে সহজলভ্য করেছেন সেখানে। সাধারণ পাইপ দিয়ে এমন একটি ‘আইস স্টুপা’ বানিয়েছেন, যা দিয়ে ‘গ্রিনহাউস ইফেক্ট’ দূর করা যায় সহজেই।

সেই সোনম ওয়াংচুক এখন ঢাকায়। শুক্রবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা পঞ্চমবারের মতো আয়োজিত ঢাকা আর্ট সামিটের প্রথম দিনে ‘জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় আমাদের করণীয়’ বিষয়ের ওপর বক্তৃতা দেন তিনি।