নীলফামারীতে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত

 সাদিকুল ইসলাম সাদিক, নীলফামারী প্রতিনিধি: সারা দেশের মতো নীলফামারীতে একযোগে ‘নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা পুলিশের আয়োজনে সকাল দশটা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৭৪টি বিটের সহযোগীতায় এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা শহরের সরকারপাড়া ঈদগাঁহ ময়দানে এক নম্বর বিটের সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন নীলফামারী থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) সাহাব উদ্দিন। এতে নীলফামারী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহমুদ উন নবী, নীলফামারী পৌরসভার কাউন্সিলর বাদশা আলমগীর, আওয়ামীলীগ নেতা নুর ইসলাম, নারী নেত্রী জিন্নাত রেহানা সুরভী বক্তব্য দেন।

সৈয়দপুরে ১০ স্থানে ‘নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ’ অনুষ্ঠিত হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল, সৈয়দপুর থানার পরিদর্শক আবুল হাসনাত খান এসব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। সৈয়দপুর উপজেলা ও পৌরসভার জনপ্রতিনিধি, আ’লীগ নেতা, সুধী সমাজ সভায় বক্তব্য রাখেন।

এ ছাড়াও থানার এস আই, এ এস আই সমাবেশে উপস্থিত থেকে সভা পরিচালনার দায়িত্ব পালন করেন। সমাবেশে নারী নির্যাতন, বাল্য বিয়ে, জুয়া, মাদক, ধর্ষণ, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে পুলিশকে সহযোগীতা করার আহবান জানিয়ে বক্তারা বলেন, পুলিশের সেবা এখন জনগণের দোড়গোড়ায় এসে পৌঁছেছে। এরফলে অপরাধ প্রবণতা যেমন কমে আসবে তেমনি সামাজিক শৃঙ্খলা বিরাজ করবে। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান বিপিএম, পিপিএম বলেন, পুলিশ ও জনতা সম্মিলিত ভাবে কাজ করতে চায়।

এজন্য পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করতে হবে। যাতে অপরাধ কর্মকান্ড না ঘটে। তিনি বলেন, আপনারা তথ্য দিয়ে যদি একহাত এগিয়ে আসেন আমরা (পুলিশ) সেবা দেয়ার জন্য দশ হাত এগিয়ে যাবো। বিট পুলিশিং সেবার মাধ্যমে মানুষের ঘরে ঘরে পুলিশ পৌঁছেছে কারণ অপরাধ যাতে শুণ্যের কোটায় নামিয়ে আনা যায়। ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদন্ড জানিয়ে এসপি বলেন, যারা এ রকম ঘটনা ঘটাতে আগ্রহ প্রকাশ করতে চান তাদের জেনে রাখতে হবে মৃত্যুদন্ড নিশ্চিত তার জন্য। জেলার অন্যান্য উপজেলায় একই সময়ে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।