চেনা রূপে ফিরেছে বার্সেলোনা

চেনা রূপে ফিরেছে জায়ান্ট বার্সেলোনা তুলে নিয়েছে আসরে টানা দ্বিতীয় জয়। সেল্টা ভিগোকে কাতালান ক্লাবটি উড়িয়ে দিয়েছে ৩-০ গোলে। যদিও এ ম্যাচে লাল কার্ড পেয়ে মাঠ ছেড়েছেন বার্সা সেন্টার ব্যাক ক্লেমেন্তে ল্যাংলেট।

সেল্টার মাটিতে জিততে পারে না বার্সা। এ অপবাদ গেলো ৫ বছরের। ২০১৪’তে সবশেষ বালাদিওস থেকে স্মিত হাসি নিয়ে ফিরতে পেরেছিলো কাতালান ক্লাবটি। তাইতো প্রথম ম্যাচে জয় পেলেও অ্যাওয়ে ম্যাচ পাইয়ে দিয়েছিলো ভয়। তাইতো ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে ৪-২-৩-১ ফর্মেশন বদলে কোচ কোম্যানের স্ট্রাটেজি ৫-৩-২।

কৌশল রক্ষণাত্মক হলেও শুরু থেকেই বার্সা খেলেছে আক্রমণাত্মক ফুটবল। দারুণ প্লেসিংয়ে সেল্টা রক্ষণকে ব্যস্ত করে রেখেছিলেন কৌতিনিও-গ্রিজম্যানরা। যার ফল আছে ম্যাচের ১১ মিনিটে। কৌতি’র পাসে আনসু ফাতির বুলেট গতির শট, নিশ্চিত রূপেই মুগ্ধ করছে টিভি সেটের সামনের দর্শকদের।

প্রথমার্ধের গল্পটা শেষ হতে পারতো ওখানেই। উবে যেত পারতো সব আনন্দ। ৩৫ মিনিটে ডেনিস সুয়ারেজকে ফাউল করায় লাল কার্ড দেখেন জেরার্ড পিকে। তবে অফসাইড সে যাত্রায় পিকেকে বাঁচিয়ে দিলেও ৪২ মিনিটে বাঁচাতে পারেনি ক্লেমেন্তে ল্যাংলেটকে। দ্বিতীয় হলুদ কার্ডে মাঠ ছাড়েন এই সেন্টারব্যাক।

এরপর পুরো দলের দায়িত্ব নিজের চওড়া কাঁধে তুলে নেন, মেসি। দারুণ সব ড্রিবলিংয়ে ব্যস্ত করে রাখেন সেল্টা রক্ষণকে। সেই হতাশা থেকেই কিনা, ৫১ মিনিটে মেসির শটে নিজেদের জালেই বল জড়ান লুকাস ওলাজা। ২-০তে লিড বার্সার।

যোগ করা সময়ে বার্সার বড় জয় নিশ্চিত করেছে সার্জিও রবার্তোর এমন গোল। যেখানেও অবদান এলএমটেনের। ফলে দুই জয়ে লিগ টেবিলের ৫-এ এখন বার্সেলোনা।  আর প্রথম হারে সেল্টা নেমে গেছে ১১তে। ম্যাচসেরা ফিলিপে কৌতিনিও।