করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৪৮৩

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে বেড়েই চলেছে মৃতের সংখ্যা। চীনের হুবেই প্রদেশে একদিনে আরও যোগ হয়েছে ১১৬ জন। এ নিয়ে বিশ্বব্যাপী মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪৮৩ জনে।

শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) হুবেই স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার প্রদেশটিতে মারা গেছেন ১১৬ জন। এখানে নতুন করে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আরও চার হাজার ৮২৩ জন। এ প্রদেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৫১ হাজার ৯৮৬ জনে।

এদিকে চীনের বাইরে এখন পর্যন্ত হংকং, ফিলিপাইন ও জাপানে তিনজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। চীনের বাইরে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ সংখ্যক করোনা আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে জাপানের ইয়োকোহামা বন্দরে নোঙর করা ডায়মন্ড প্রিন্সেস নামক প্রমোদতরীতে। বিলাসবহুল ওই নৌযান তিন হাজার ৭০০ যাত্রী নিয়ে এখন কোয়ারেন্টাইনে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সেখানে থাকা ১৭৫ জনকে করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে।

গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের মধ্যাঞ্চলীয় হুবেই প্রদেশের উহানে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত করা হয়। এরপর থেকে চীনে মহামারি আকার ধারণ করে এই ভাইরাস। ভাইরাসটি চীনের ৩১ প্রাদেশিক পর্যায়ের অঞ্চল ছাড়াও বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে। এ ভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা এবং প্রাণহানি বাড়তে থাকায় বিশ্বব্যাপী জরুরি অবস্থা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংক্রমণ ঠেকাতে ব্যাপক সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয় অধিকাংশ দেশ।

এখন পযর্ন্ত বাংলাদেশে কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর না পাওয়া গেলেও সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশি নাগরিক এতে আক্রান্ত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। গত ১০ ফেব্রুয়ারি দেশটিতে প্রথমবারের মত কোনো বাংলাদেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. মোস্তাফিজুর রহমান। এবার সিঙ্গাপুরে আরও এক বাংলাদেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাতে সিঙ্গাপুরের জাতীয় দৈনিক স্ট্রেইট টাইমসের অনলাইন প্রতিবেদন জানায়, মঙ্গলবার নতুন করে দুই জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৩৯ বছর বয়সী একজন বাংলাদেশি নাগরিক বলে নিশ্চিত করা হয়েছে।

ওই ব্যক্তি সেলেটার অ্যারোস্পেস হাইটস নামের একটি এলাকায় কাজ করতেন। সিঙ্গাপুরের এনসিআইডির আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করে সেখানে তার চিকিৎসা চলছে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমটি।

উল্লেখ্য, নিরাপত্তার স্বার্থে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এ দুই বাংলাদেশির পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।করোনাভাইরাসের বিস্তারের তালিকায় চীনের পর এখন দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে জাপান।