এস এম জাহাঙ্গীরকে মনোনয়ন না দিতে বিএনপির শীর্ষ নেতাকে চিঠি

যারা নিজ দলের নেতাকর্মীর গায়ে হাত তোলেন তাদের হাতে ধানের শীষও নিরাপদ নয় বলে দাবি করেছেন ঢাকা ১৮ আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।  এজন্য এস এম জাহাঙ্গীরের প্রতি অনাস্থা জানিয়ে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কাছে চিঠিও দিয়েছেন এই আসনে বিএনপির বাকী ৮ মনোনয়নপ্রত্যাশী।

বিএনপির নীতি নির্ধারকরা বলছেন, গুলশান কার্যালয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত কমিটি করা হয়েছে এবং দোষীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। ১২ই সেপ্টেম্বর বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় উপনির্বাচনে মনোনয়নপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকার। সেখানে ঢাকা ১৮ আসনের দুই প্রার্থীর নেতাকর্মীরা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

এই ঘটনাকে পরিকল্পিত বলছেন, ওই আসনের বাকি মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। ঢাকা ১৮ আসনের বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী বাহাউদ্দিন সাদি বলেন,’এটা আসলে প্রথম নয়। এটা বারা বার হচ্ছে। প্রতিবার আমি এই ঘটনা ফেস করেছি। এখন সবাই করছে।’

এদিকে, ঢাকা ১৮ আসনের বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী মোস্তাফিজুর রহমান সেগুন জানান,’এস এম জাহাঙ্গীরের লোকজন এ কাজ করেছে। আপনারা জানেন যে, জাহাঙ্গীর এ এলাকার লোক না।’

এ প্রসঙ্গে ঢাকা ১৮ আসনের বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী এম আব্বাস উদ্দিন বলেন,’যাদের মধ্যে মারামারি হয়েছে তারা সবাই বিএনপি করে। আমরা এমনটা আশা করিনি। এটা অপ্রত্যাশিত।’

মনোনয়নপ্রত্যাশী এম কফিল উদ্দিন আহমেদের জানালেন, তার নেতাকর্মীদের গায়ে যারা হাত তুলেছেন তারা বিএনপির কেউ হতে পারে না। তিনি বলেন,’এ ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তারা কেউ দলের লোক নয়। ঢাকা ১৮ আসনের লোকও নয়। এরা হলো ভাড়াটিয়া গুন্ডা।’

অন্যদিকে, এস এম জাহাঙ্গীর দাবি করছেন, কর্মী-সমর্থকদের এই ঘটনা  মনোনয়ন বা নির্বাচনে কোন প্রভাব ফেলবে না। এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন,’প্রার্থী কোন ব্যাপার না। এখানে কর্মীদের মাঝে যেটা হয়েছে সেটা বাইরে হয়েছে। সেখানে আমরা ছিলাম না। এটা অন্য কোন প্রভাব ফেলবে বলে আমি মনে করি না।’

বিএনপির নীতি নির্ধারকরা বলছেন, সংঘর্ষের ঘটনা বিবেচনায় রেখেই ঢাকা ১৮ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন,’তদন্তের মাধ্যমে দলের পক্ষ থেকে একটা ডিসিপ্লিনারি এ্যাকশন তো নেয়া হবে। এটা গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। প্রতিযোগীতা থাকবে তবে সেটা ব্যক্তিগত আক্রোশের পর্যয়ে যাওয়া উচিত না।’

ঢাকা ১৮ আসনে ধানের শীষের দাবিদার ৯ নেতা।  তবে, এই আসনে উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণের দিন এখনো ঠিক হয়নি।