আউটসোর্সিংয়ের বড় উৎস বাংলাদেশ

আউটসোর্সিংয়ের বড় উৎস বাংলাদেশ

নাঈম আল জিকো : নতুন প্রত্যাশা নিয়ে যাত্রা শুরু হয়েছে নতুন বছরের। বাংলাদেশের সামনে অন্তত ১৫টি খাতকে দ্রুত উন্নতির  ক্ষেত্র হিসেবে দেখছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। সেসব খাতের  অগ্রযাত্রা এবং ভবিষ্যতে সম্ভাবনার দুয়ারগুলো নিয়ে নববর্ষে বৈশাখীর মাসব্যাপী ধারাবাহিক আয়োজনে আজ দেখুন তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি খাত নিয়ে দুটি প্রতিবেদনের দ্বিতীয়টি। 

তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতের বার্তা ভাল বটে, কিন্তু এই খাতের অনেক সম্ভাবনার দুয়ার খুলতে, দরকার নানা আয়োজন, যেগুলো দূর করবে সীমাবদ্ধতা। জিনাত আফরোজার আগ্রহ ভিডিও গেম, গ্রাফিক্স ডিজাইন ও অ্যানিমেশনে। ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠা করেন টেকনো ম্যাজিক নামে প্রতিষ্ঠান। বেশ কিছু মোবাইল গেমস, কার্টুন ও অ্যানিমেটেড শর্ট ফিল্ম বানিয়েছেন। সম্ভাবনা থাকলেও, বললেন এসব কাজ পাবার ব্যাপারে, এখনও দেশের তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি খাত পিছিয়ে আছে।

আরও ক’জন উদ্যোক্তা মনে করেন, এ খাতে ভাষা নিয়ে যেমন কিছু ইতিবাচক সম্ভাবনা বিদ্যমান তেমনি দুর্বলতাও আছে।
এই খাতে বিশ্বে আউটসোর্সিং-এর বাজার স¤প্রসারণ দেশের জন্য কাজের আরও বড় সুযোগ তৈরি করবে। ইতোমধ্যেই আউটসোর্সিং বাজারে দেশের অবস্থান ভাল। আরও ভাল করতে হলে, ইন্টারনেট সেবার মান বাড়াতে হবে। কম খরচে দিতে হবে ভাল ব্রডব্যান্ড সংযোগ।

ই-বাণিজ্য দুনিয়া জোড়া জনপ্রিয়। দেশের ভেতরেও হচ্ছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারে দেশি পণ্যের ই-বাণিজ্যের বিশাল সম্ভাবনা কাজে লাগানো যাচ্ছে না। কারণ, পণ্য রপ্তানি ও বিতরণ নিয়ে আছে দুর্বলতা।

এছাড়াও আন্তর্জাতিক অনেক অ্যাপস দেশে বাণিজ্য করে বিপুল টাকা নিয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে নেটফ্লিক্স একটি দৃষ্টান্ত। এধরণের বাণিজ্য থেকেও দেশের আয়ের সুযোগ এখনও অধরা।

শুধু নতুন নতুন প্রযুক্তির সংযোজন, এই খাতের সম্ভাবনাগুলোকে কাজে লাগাবার জন্য যথেষ্ট নয়। প্রয়োজনীয় বহুমূখী শিক্ষা ও আয়োজন জরুরী, যা সমান গতিতে না এগুলে পেছনে পড়ে থাকতে পারে সুযোগগুলো।