অবশেষে রাজপরিবার থেকে আলাদা প্রিন্স হ্যারি ও মেগান

অবশেষে রাজপরিবারের কড়া নিয়মকানুন ও জনগনের অর্থায়নে না চলে স্বাধীন ভাবে নিজেদের আয়ে জীবনযাপনে নাতি  ডিউক অভ সাসেক্স প্রিন্স হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগান মারকেল ইচ্ছার প্রতি সম্মতি দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের রানী এলিজাবেথ । গতকাল এ চাঞ্চল্যকর ঘটনা নিয়ে যুক্তরাজ্যের রাজপরিবারে বিশেষ বৈঠক হয় । যেখানে রাজ পরিবারের সকলে থাকলেও ছিলেন না ডাচেস অভ সাসেক্স মেগান মারকেল ।

প্রিন্স হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগান মারকেল ইচ্ছার প্রতি সম্মতি দেখিয়ে একটি ইতিবাচক দৃষ্টান্ত উপস্থান করেল ব্রিটিশ রাজ পরিবার । গতকাল পূর্ব  ইংল্যান্ডের নোরফোকে রানীর স্যানড্রিংহাম এস্টেটে রাজ পরিবার থেকে প্রিন্স হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগানের সরে যাওয়া নিয়ে সংকট সমাধানে বৈঠকে বসে পুরো রাজ পরিবার। তবে গোটা বিষয়টি নিয়ে আরও কিছু প্রক্রিয়া বাকি রয়েছে বলে জানিয়েছেন ৯৩ বছর বয়সী রানী।

রানীর সঙ্গে কথা বলার কয়েক ঘণ্টা আগে হ্যারি এবং তার বড় ভাই প্রিন্স উইলিয়াম জানান, তাদের মধ্যে কোনো রকম দ্বন্দ্ব নেই। ব্রিটেনের একটি পত্রিকায় দাবি করা হয়েছিল, মেগান আর হ্যারি নাকি বলেছেন, উইলিয়াম তাদের সঙ্গে ‘অপমানজনক আচরণ’ করেছেন। এই পত্রিকাটি লিখেছে, হ্যারির স্ত্রী মেগান নাকি বলেছেন, ব্রিটেনের রাজপরিবারে ২০ মাস থাকার পরে এবার সরে যেতে চান তিনি। সব কিছুর দায় তিনি চাপিয়েছেন হ্যারির বড় ভাই উইলিয়ামের উপরে। বড়দিনের মৌসুমেই নাকি মেগান বলেছিলেন, ‘‘এ ভাবে আমি আর পারছি না!’’